al-quran,al-quraneralo.com ,বিশুদ্ধ ইসলামী গ্রন্থ, হাদীস সমূহ, Bangla islamic news,মুসলিম,ঈমান, ইসলাম, তিরমিজি, আল-কোরান, বুখারীর হাদিস, মুহাম্মদ(সাঃ),islamic news,Hadith, বাংলা হাদীস ,quran,al quran, quran tilawat, islamic story bangla,

মুমিন হওয়ার জন্য করণীয়। পার্ট-০১

ঈমান ও আক্বীদাহ

খাটি মুমিন-মুসলমান রূপে জীবন গড়তে চান : প্রথমে মুমিন হওয়ার প্রশ্ন, তারপর খাঁটি মুমিন হওয়ার প্রশ্ন। তাই প্রথমে আমরা মুমিন হওয়ার জন্য কি কি জরুরি তা বর্ণনা করব, তারপর খাটি মুমিন হতে চাইলে কি কি করণীয় সে সম্বন্ধে আলােচনা পেশ করব ইনশাআল্লাহ।

(উল্লেখ্য, শিরােনামে উল্লেখিত মুমিন ও মুসলমান শব্দদুটোকে সমার্থবােধক ধরে নিয়ে আলােচনা করা হয়েছে, যদিও ক্ষেত্র বিশেষে মুমিন ও মুসলমান শব্দদ্বয়ের অর্থে পার্থক্যও ধরা হয়ে থাকে।)।

মুমিন হওয়ার জন্য করণীয়।

ওয়ার জন্য যে কয়টি বিষয়ে ঈমান রাখতে হয় সেগুলােতে ঈমান-বিশ্বাস স্থাপন করতে হবে এবং সেগুলাের ক্ষেত্রে কোন ভিন্ন ধ্যান-ধারণা থাকলে তা বর্জন করতে হবে। নিম্নে আমরা প্রথমে কয়টি বিষয়ে কি কি ঈমান-বিশ্বাস রাখতে হয় সে সম্বন্ধে বিবরণ পেশ করব, তারপর।

উদাহরণ স্বরূপ ঈমান-বিরােধী কিছু ধ্যান-ধারণার কথা উল্লেখ করব। যাতে ঈমান-বিরােধী উক্ত ধ্যান-ধারণাসহ অনুরূপ ঈমান-বিরােধী অন্য কোন ধ্যান-ধারণা থাকলে সবগুলাে থেকে বেঁচে থাকা সম্ভব হয়।

যেসব বিষয়ে যা যা ঈমান-বিশ্বাস রাখতে হবে।

(এখানে সংক্ষেপে যে যে বিষয়ে যা যা বিশ্বাস রাখতে হয় তা উলে করা হল। এগুলাে সম্বন্ধে বিস্তারিত জানতে হলে আমার রচিত “আহকামে যিন্দেগী” বা “ইসলামী আকীদা ও ভ্রান্ত মতবাদ” কিতাব দেখে নেয়া যেতে পারে।)।

“আল্লাহ”-এর উপর নিম্নোক্ত ঈমান-বিশ্বাস রাখতে হবে।

১. আল্লাহ্র সত্তা ও তাঁর অস্তিত্বে বিশ্বাস করা ।

২. আল্লাহর ছিফাত অর্থাৎ, তাঁর গুণাবলীতে বিশ্বাস রাখতে হবে।

৩. তাওহীদ বা আল্লাহর একত্ববাদে বিশ্বাস রাখতে হবে। তাঁর সত্তায় কেউ

শরীক নেই, তাঁর গুণাবলীতেও কেউ শরীক নেই এবং ইবাদতে তাঁর সঙ্গে কাউকে শরীক করা যাবে না।

ফেরেশতা সম্বন্ধে নিম্নোক্ত ঈমান-বিশ্বাস রাখতে হবে।

ফেরেশতা সম্বন্ধে এই বিশ্বাস রাখতে হবে যে, আল্লাহ এক প্রকার নূরের। মাখলুক সৃষ্টি করেছেন, যারা পুরুষও নয় নারীও নয়। যারা কাম, ক্রোধ, লােভ ইত্যাদি রিপু থেকে মুক্ত। যারা নিস্পাপ। আল্লাহর আদেশের বিন্দুমাত্র ব্যতিক্রম তারা করে না। তারা বিভিন্ন আকার ধারণ করতে পারে। আল্লাহ তাদেরকে সৃষ্টি করে বিভিন্ন দায়িত্বে নিয়ােজিত রেখেছেন।

নবী ও রসূল সম্বন্ধে নিমােক্ত ঈমান-বিশ্বাস রাখতে হবে।

১. নবীগণ নিস্পাপ-তাঁদের দ্বারা কোনাে পাপ সংঘটিত হয় না।

২. নবীগণ মানুষ, তাঁরা খােদা নন বা খােদার পুত্র নন বা খােদার রূপাতম।

(অবতার) নন বরং তাঁরা খােদার প্রতিনিধি ও নায়েব।

৩. নবীগণ আল্লাহর বাণী হুবহু পৌঁছে দিয়েছেন।

৪. নবীদের ছিলছিলা হযরত আদম (আ.) থেকে শুরু করে আমাদের নব। হযরত মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর উপর শেষ হয়েছে।

৫. আমাদের নবী হযরত মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম সর্বশ্রেষ্ঠ। ” নবী এবং তিনি খাতামুন্নাবী অর্থাৎ, তাঁর পর আর কোন নবী আসবে না।

৬. নবীগণ কবরে জীবিত। আমাদের নবী সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামও। কবরে জীবিত আছেন।

৭. হযরত আদম (আ.) থেকে শুরু করে হযরত মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি

ওয়া সাল্লাম পর্যন্ত যত পয়গম্বর এসেছেন, তাঁদের সকলেই হক ও সত্য। পয়গম্বর ছিলেন, সকলের প্রতিই ঈমান রাখতে হবে। তবে হযরত মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর আগমনের পর অন্য নবীর। শরীয়ত রহিত হয়ে গিয়েছে, এখন শুধু হযরত মুহাম্মাদ সাল্লালাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম-এর শরীয়ত ও তাঁর আনুগত্যই চলবে।

৮. নবীদের মু’জিযায় বিশ্বাস করাও ঈমানের অঙ্গীভূত। নবীদের দ্বারা তাঁদের সত্যতা প্রমাণিত করার জন্য অনেক সময় অনেক অলৌকিক ঘটনা। ঘটেছে। এসব অলৌকিক ঘটনাকে ‘মুজিযা’ বলে ।।

আসমানী কিতাব সম্বন্ধে নিম্নোক্ত ঈমান-বিশ্বাস রাখতে হবে।

১. এ সমস্ত কিতাব আল্লাহর বাণী, মানব রচিত নয় ।

২. আল্লাহ যেমন অবিনশ্বর ও চিরন্তন, তাঁর বাণীও তদ্রুপ অবিনশ্বর ও | চিরন্তন। কুরআন নশ্বর বা সৃষ্ট নয়।

৩. আসমানী কিতাবসমূহের মধ্যে কুরআন শরীফ সর্বশ্রেষ্ঠ।

৪. কুরআন শরীফ সর্বশেষ কিতাব, এর পর আর কোনাে কিতাব নাযিল হবে না। কেয়ামত পর্যন্ত কুরআন শরীফের বিধানই চলবে।

৫. কুরআন শরীফের হেফাজতের জন্য আল্লাহ তাআলা ওয়াদা করেছেন, সেমতে কেউ একে কোনােরূপ পরিবর্তন ঘটাতে পারবে না। কুরআনকে অবিকৃত বিশ্বাস করতে হবে।

এক বর্ণনামতে সর্বমােট ১০৪টি কিতাব প্রেরণ করা হয়। তন্মধ্যে চারটি হল বড় কিতাব। যথা:

১. তাওরাত বা তৌরীত: যা হযরত মূসা (আ.)-এর উপর নাযেল হয়।।

২. যবুর: যা হযরত দাউদ (আ.)-এর উপর নাযেল হয়।

৩. ইঞ্জীল: যা হযরত ঈসা (আ.)-এর উপর নাযেল হয়।

৪. কুরআন: যা আমাদের নবী হযরত মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া। সাল্লাম-এর উপর নাযিল হয়।।

“যদি জীবন গড়তে চান”

এই বইটি থেকে আমাদের এই পোস্টি নেওয়া এই হাদীছ বিষয়ে আরো বিস্তারিত ভাবে আলোচনা করা হয়েছে এই বইটি মধ্যে ,বইটি নিতে চাইলে যে কোনো
ইসলামিক লাইব্রেরী থেকে সংগ্রহ করতে পারেন  বইটি লিখেছেন..

মাওলানা মুহাম্মাদ হেমায়েত উদ্দীন

গ্রন্থকার, আহকামে যিন্দেগী, ফাযায়েলে যিন্দেগী, বয়ান খুতবা, ইসলামী আকীদা ভ্রান্ত মতবাদ,

ফিকহুন্ নিছা, আহকামে হজ্জ, কুরআন হাদীছ ইসলামী ইতিহাসের মানচিত্র ইসলামী মনােবিজ্ঞান প্রভৃতি

বিদ্র্যঃ
আমাদের টাইপিং কোনো ভুল হয়ে থাকলে ক্ষমা দৃষ্টিতে দেখবেন  



Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *